প্রতিষ্ঠানের ইতিহাস

এককালের ভোলা মহকুমা সদর , রাক্ষুসি মেঘনা বিধৌত ভোলা জেলার কৃতিসন্তান ব্যারিস্টার আবু আবদুল্লা’র জন্মধণ্য ঐতিহ্যবাহী ও ভোলা জেলার অন্যতম ও শ্রেষ্ঠ উপজেলা দৌলতখান। অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ব্যারিস্টারি সার্টিফিকেট অর্জনকারী ১৯৫৭ সালের ভারতবর্ষের শ্রেষ্ঠ ও সৎ আই,জি,পি হিসেবে সুখ্যাতি অর্জনকারী দৌলতখানের ঐতিহ্যবাহী ও সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে ১৯০৫ সালের ১ সেপ্টেম্বর জন্ম গ্রহন করে পড়াশুনা , সামাজিকতা , সরকারী চাকুরী থেকে শুরু করে দেশের সর্বস্তরে সর্ব মহলে নন্দিত সৎ ও ন্যায়নিষ্ঠ পুলিশের আই,জি পদে অধিষ্ঠিত হয়ে দৌলতখান উপজেলাকে সারা দেশে পরিচিত করে তুলেছেন যিনি , তিনি ব্যারিস্টার আবু আবদুল্লা। ১৯৭৩ ইং সালের ২৫ মার্চ তাঁর মৃত্যুর পর চিরকুমার মরহুম আবু আবদুল্লা’র সততা দিয়ে উপার্জিত অর্থে তাঁর বড় ভাই আবদুল মান্নান তালুকদারের উদ্যোগে “মোহাম্মদ আবু আবদুল্লা ট্র্যাষ্ট” গঠিত হয়। যার পরিচালনা পর্ষদে ছিলেন সর্বজন পরিচিত Ñ ১) ফনী ভূষণ মজুমদার ২) মিঃ তফাজ্জল আলী ৩) কর্ণেল শওকত আলী ৪) শাহ মোহাম্মদ শরীফ ৫) মোসাম্মৎ আশরাফুন্নেছা প্রমুখ। মরহুম আবু আবদুল্লা’র রেখে যাওয়া গচ্ছিত ধনের এই ট্র্যাস্টি থেকে তৎকালীন নামকরণের অর্থ অনুদানের হারে যশোর বোর্ডের অধীন ২,৫০,০০০/Ñ (দুই লক্ষ পঞ্চাশ হাজার) টাকা বরাদ্দ দিয়ে তাঁর জন্মস্থান ঐতিহ্যবাহী দৌলতখান এর সাথে সমন্বয় রেখে প্রতিষ্ঠা করা হলো ০৪/৫/১৯৮৩ ইং সালে “দৌলতখান আবু আবদুল্লা কলেজ”।

বীরশ্রেষ্ঠ মোস্তফা কামালের জন্মধন্য এই দৌলতখানের ঐতিহ্যবাহী প্রতিষ্ঠান দৌলতখান আবু আবদুল্লা কলেজ প্রতিষ্ঠায় দীর্ঘদিন থেকে স্থানীয় গণ্যমান্য বিশেষ করে জাতীয় পর্যায়ের অনেক নেতৃস্থানীয় বরেণ্য ব্যক্তিবর্গ ওঁতোপ্রোতভাবে জড়িত রয়েছেন। তন্মধ্যে অন্যতম হলেন দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার বিখ্যাত রাজনীতিবিদ ১৯৬৯ এর গণ-অভ্যুত্থানের অগ্রনায়ক , বঙ্গবন্ধুর ¯েœহধন্য রাজনৈতিক সচিব , অত্র এলাকার ৫ বারের সংসদ সদস্য , একাধিকবারের সফল মন্ত্রী ও বর্তমান সরকারের সফল বাণিজ্য মন্ত্রী ভোলার প্রাণপুরুষ সর্বস্তরের জনগণের নয়নমনি জনাব তোফায়েল আহমদ। তিনি অত্র কলেজের বহুবার গভর্নিং বডির সভাপতি থেকে কলেজটিকে বহুদূর এগিয়ে এনেছেন , ১৯৮৩ সালে উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ে প্রতিষ্ঠার পর শিক্ষা , সংস্কৃতি , পরীক্ষার ফলাফল ইত্যাদিতে চতুর্দিকে কলেজের সুনাম ছড়িয়ে পড়লে ১৯৮৭ সালেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় পূর্ণাঙ্গ ডিগ্রি কলেজের অনুমোদন দেন। ১৯৮৩ ই সালে কলেজ প্রতিষ্ঠার এই মাহেন্দ্রক্ষণে দক্ষিণ বাংলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষাবিদ ও কৃতি সন্তান পটুয়াখালী সরকারী কলেজ থেকে অবসর প্রাপ্ত , ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের প্রাক্তন পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক , অধ্যক্ষ মরহুম মোঃ জাকীর হোসেন প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ হিসেবে হাল ধরেন। এই “দৌলতখান আবু আবদুল্লা কলেজ” প্রতিষ্ঠার পূর্বপর দৌলতখান উপজেলার অনেক হিতৈষি , শুভাকাঙ্খী , শুভানুধ্যায়ী ছিলেন যাদের ত্যাগের বিনিময়ে এই কলেজ বৃহত্তর বরিশালের শ্রেষ্ঠ কলেজ হিসেবে পরিচিতি লাভ করে।

স্বাধীনতা চেতনায় উদ্ভাসিত বরেণ্য শিক্ষাব্রতী সুধীজনদের মধ্যে সর্ব জনাব মরহুম নুরুদ্দিন আল মাসুদ , প্রাক্তন আইন মন্ত্রী মরহুম আব্দুল হাই চৌধুরী , প্রাক্তন সংসদ সদস্য আয়াজ উদ্দিন আহমদ , মরহুম ফরমুজল হক , প্রাক্তন এন,এস,আই’র মহাপরিচালক , ৩টি মন্ত্রনালয়ের প্রাক্তন সচিব , সারা দেশে সুপরিচিত পুলিশ বান্ধব সৎ অফিসার মরহুম এ , এম , মেছবাহ উদ্দিন , মাদ্রাসা বোর্ডের প্রাক্তন চেয়ারম্যান মরহুম ইউনুছ সিকদার , দীর্ঘ ৪ যুগের আওয়ামী লীগ নেতা মরহুম নজরুল ইসলাম , সার্ক সম্মেলনের প্রথম সভাপতি ও অবসর প্রাপ্ত ওয়াপদার চীফ ইকোনোমিষ্ট জনাব লুৎফর রহমান , দৌলতখান সরকারী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রাক্তন প্রধান শিক্ষক সর্বজন শ্রদ্ধেয় মরহুম মাহবুবুল হক , প্রাক্তন প্রধান শিক্ষক মানিক লাল শর্মা , মরহুম সেলিম চেয়ারম্যান , প্রাক্তন চেয়ারম্যান মরহুম এফ , কে , ইব্রাহিম , প্রাক্তন চেয়ারম্যান মরহুম গোলাম আকবর মিলন মেয়া , প্রাক্তন চেয়ারম্যান মরহুম মোহাম্মদ আলী , সড়ক ও জনপদের প্রাক্তন এস , ডি , ই মরহুম আহমদ হোসেন , অতিরিক্ত সচিব জনাব মোঃ ছাইফুল্লাহ , ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের অধ্যাপক ডঃ নুরুল ইসলাম নাজেম , ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের অধ্যাপক ডঃ মোঃ শামসুল আলম , এলাকার শিল্পপতি জনাব আমিরুল ইসলাম বাচ্চু মেয়া , হাইব্রিড এর এম , ডি , জনাব মোঃ নজরুল ইসলাম , অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক মোঃ সিরাজুল ইসলাম , মেজর আবু আবদুল্লাহ , অবসর প্রাপ্ত মেজর আঃ খালেক , বিডিআর এর বিদ্রোহের শিকার সাবেক ডিজিএফআই’র মহাপরিচালক মরহুম কর্ণেল নাফিজ , কর্ণেল মোঃ ফরিদ হোসেন , মরহুম ফতেজাং চৌধুরী ছুবা মেয়া , উপমহাদেশের বিখ্যাত ফুটবলার আমির জাং চৌধুরী গজনবী মেয়া , মরহুম ওবাযেদ মেয়া , মরহুম আব্দুল গফুর মেয়াসহ দৌলতখান উপজেলার বিদগ্ধজন কলেজটির বিভিন্ন প্রকার উন্নয়নে সম্পৃক্ত ছিলেন এবং আছেন।